আগ্রহের স্থান

উদয়পুর 

উদয়পুর ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের একটি শহর এবং পৌর কাউন্সিল। ত্রিপুরা সুন্দরী মন্দিরের জন্য এই শহর বিখ্যাত। এটি গোমতী জেলার সদর দপ্তর। উদয়পুর আগরতলা থেকে ৫৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। প্রচুর কৃত্রিম হ্রদ রয়েছে এখানে(যেমন ধনী সাগর, বিজয় সাগর (মহাদেব দিঘি), জগন্নাথ দিঘি, অমর সাগর)। উদয়পুর ত্রিপুরার তৃতীয় বৃহওম শহর,এটি গোমতী নদীর তীরে অবস্থিত।

উদয়পুরের মন্দিরগুলির মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত ত্রিপুরা সুন্দরি মন্দির, যা ৫১ টি মহাপীঠগুলির মধ্যে একটি। মন্দিরটি মহারাজা ধন্য মানিক্য দেববর্মা দ্বারা ১৫০১ সালে নির্মিত হয়েছিল। মন্দিরের পাশে একটি বড় হ্রদ রয়েছে যা কল্যাণ সাগর নামে পরিচিত। ভুবনেশ্বরী মন্দির এখানে আরেকটি বিখ্যাত মন্দির। উদয়পুর “হ্রদ নগর” নামেও পরিচিত এবং অনেকগুলি সুন্দর হ্রদ রয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছে বিজয় সাগর, জগন্নাথ দিঘি, অমর সাগর এবং উপরে উল্লিখিত, কল্যাণ সাগর। এখানে একটি জাতীয় গ্রন্থাগার রয়েছে “নজরুল গ্রন্থগার”, যা কাজী নজরুল ইসলামের নামে রাখা হয়েছে।

উদয়পুরের মন্দির

ত্রিপুরা সুন্দরি মন্দির ।

জগন্নাথ-বারী মন্দির ।

মহাদেব-বারী মন্দির ।

সৎসঙ্গ বিহার, উদয়পুর ।

লোকনাথ মন্দির ।

রামকৃষ্ণ আশ্রম ।

বাসন্তী মন্দির ।

রামঠাকুর আশ্রম ।

ভুবনেশ্বরী মন্দির ।

অমরপুর

অমরপুর ১৬ শতকের কৃত্রিম হ্রদ অমরসাগরের তীরে অবস্থিত একটি বিলাসবহুল শান্ত পিকনিক স্পট। শহরটি একটি প্রাসাদের ধ্বংসাবশেষের উপর দাঁড়িয়ে আছে |শহরের দক্ষিণাঞ্চলে আট মাথা বিশিষ্ট দেবী মংগলচন্ডীর প্রতি উৎসর্গীকৃত একটি মন্দির রয়েছে। প্রতি বছর বসন্ত পঞ্চমীর (ফেব্রুয়ারি) সময় এখানে একটি মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

অমরসাগর ও ফটিকসাগর:

এইগুলি হল ঐতিহাসিক গুরুত্ব সম্পন্ন দুইটি সুন্দর হ্রদ |